‘লজ্জার ভূষণ জাদুঘরে জমা দিয়েছে ইসি’

8288_Untitled-1নির্বাচন কমিশন (ইসি) তাদের লজ্জার ভূষণ জাদুঘরে জমা দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। একইসঙ্গে অবিলম্বে ভোট ডাকাতির নির্বাচন বাতিলের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেছেন তিনি। আজ দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। হারের লজ্জা থেকে বাঁচতেই বিএনপি নির্বাচন থেকে সরতে চাইছেÑ আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুব-উল আলম হানিফের এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী আহমেদ বলেন, যারা মানুষের জীবন নিয়ে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধি করে, যারা মানুষের লাশের পাহাড় ডিঙ্গিয়ে অবৈধ ক্ষমতাকে ধরে রাখতে চায়, তারা তো সহিংস রক্তপাত আর হত্যাকে নিয়ে নিষ্ঠুর রসিকতা করতেই পারে। এরা একদিকে যেমন নিষ্ঠুর রসিক অন্যদিকে মূর্খ দাম্ভিক, দর্পি অবিমৃশ্যকারী। ইউপি নির্বাচনের প্রাণহানির বিবরণ তুলে ধরে রিজভী আহমেদ বলেন,  ১ম দফা নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় পুলিশ, বিজেপি ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের গুলি ও হামলায় প্রাণ হারিয়েছে ২৮ জন। ২য় দফায় নির্বাচনের দিন আওয়ামী সন্ত্রাসীদের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছে শিশু, ঢাবির ছাত্র ও মহিলাসহ ১১ জন। নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় প্রাণ হারিয়েছে আরও ৩ জন। গতকালও মাদারীপুর ও যশোরে ২ জন নিহত হয়েছে। ১ম ও ২য় দফা নির্বাচনে সহিংসতায় প্রাণ হারিয়েছে এ পর্যন্তু ৪২ জন। আহত ও পঙ্গু হয়েছে সহস্রাধিক মানুষ। বিএনপি প্রার্থী ও সমর্থকদের শ’ শ’ বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগ ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। তিনি বলেন, ধারাবাহিকভাবে সব নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভোট সন্ত্রাসের সহযোগিতাকারী হিসেবে বর্তমান নির্বাচন কমিশন এখন একটি নিথর নিষ্ক্রিয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত হওয়ায় দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা এখন অভিভাবকহীন। তাই জনগণের ভোটাধিকার, নির্বাচন এখন এদেশে এতিম হয়ে পড়েছে।  শুধু বিরোধী রাজনৈতিক দল নয়, দেশের সুশিল সমাজও এ নির্বাচন কমিশনকে সরে যেতে বলেছে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন তাদের লজ্জার ভূষণ যাদুঘরে জমা দিয়ে দিয়েছেন।