শেখ হাসিনা সরকারের আমলে শিক্ষা ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বাজেট বরাদ্দ দিয়েছেন- লালমোহনে এমপি শাওন,

মোঃ মাকসুদ লালমোহন থেকে,

ভোলানিউজ.কম,

১৭অক্টোবর-২০১৭ইং,
লালমোহন উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের বিশেষ অবদান রাখায় ভোলা জেলার শ্রেষ্ট শিক্ষা অফিসারকে মাদার তেরেসা এ্যাওয়ার্ড- ২০১৭ ও প্রিন্সেস ডায়না এ্যওয়ার্ড-২০১৭ পাওয়ায় লালমোহন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জালাল আহমেদকে ১৭ই অক্টোবর সকাল ১০টায় উপজেলা প্রশাসনের হলরুমে প্রাথমিক প্রধান শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত, গীতা পাঠ জাতীয় সংগীত ও শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন লালমোহন তজুমদ্দিনের গণমানুষের নেতা দ্বীপবন্ধু আলহাজ¦ নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি মহোদয়। এসময় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন ২০০৮ সালে অবাধ সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচনে মহাজোট সরকার গঠন করেন। সরকার গঠনের পরেই বর্তমান প্রধান মন্ত্রী, সফল রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষা ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বাজেট প্রদান করেন। বাংলাদেশের ৫৫ হাজার বর্গমাইলে ১৭ কোটি মানুষের বসবাস। সকলের প্রানের দাবি বেসরকারী রেজিষ্ট্রারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সরকারি করনের কারণ শিশুরা জন্ম হওয়ার পর প্রথমেই তাদেরকে প্রাথমিক বিদ্যালয় ভর্তি করানো হয়। ঐ সময় শিক্ষকেরাই অভিভাবকের ভূমিকায় তাদেরকে নিজের সন্তানের মতো পড়ালেখা করায়। মায়ের কোলের থেকেই বের হয়ে বিদ্যালয়ে যান। এই সকল শিক্ষকের যে সামান্য আয় তা দিয়ে একদিনের ভালো ভাবে তাদের পরিবারকে খাওয়ানো যায়না। তাদের দুঃখ দুর্দসা লেগেই থাকে। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানেই প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেছেন। এর পর থেকে যে সরকারই এসেছে কোন সরকারই প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ মাদরাসা ও কলেজ সরকারী ও জাতীয়করণ নিয়ে ভাবেননি। আওয়ামীলীগ সরকার যখনি ক্ষমতায় আসে তখনি সকল শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সারা দেশে একযোগে ২৭ হাজার বেসরকারী স্কুলকে সরকারী করণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষা ক্ষেত্রে এক বিপ্লব ঘটিয়েছে। এমনকি এবতেদায়ী মাদ্রাসাকে এখন এমপিও ভূক্তি করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। সেই সাথে শিক্ষকদের বেতন ক্যাটাগরী অনুযায়ী দ্বিগুন করেছেন। স্কুল, মাদরাসা, কলেজ, বিশ^বিদ্যালয় সকলকে এক ক্ষেত্রে মূল্যায়ন করেছেন। শেখ হাসিনা সরকার শিক্ষাবান্ধব সরকার। এইটা শুধু সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেই। শিক্ষা ক্ষেত্রে শিক্ষকদের কথা চিন্তা করে সোয়া চার কোটি টাকা বাজেট করেছেন। পদ্মা সেতু প্রকল্প নিজ অর্থায়ন করে যাচ্ছেন। রাজধানী যানজট মুক্ত করার জন্য কয়েকটি প্লাইওভার নির্মাণ করেছেন। হাতিরঝিল কে সুন্দর্য করেছেন, বিদ্যুতের ক্ষেত্রে ক্ষমতায় আসার পর ৩২০০ মেগাওয়াট থেকে সাড়ে চৌদ্দ হাজার মেগাওয়াটে জাতীয় গ্রিডে যোগ করেছেন। খাদ্য ঘাটতি দেশকে আজকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছেন।

বর্তমান সরকার বাংলাদেশকে একটি নি¤œ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করেছেন। জোট সরকারের আমলে কৃষকেরা সার পেতনা। সারের জন্য আন্দোলন করতে গিয়ে ১৭ জন কৃষকের প্রান দিতে হয়েছিল। আজকে সেই সংকট নেই। বিধবা, বয়স্কভাতা পাচ্ছেন অসহায় মা-বোনেরা। জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা তাদের বেতন বাড়িয়ে দ্বিগুন করা হয়েছে। শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশকে আগামী দিনে বর্তমান শিশুরাই সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ পরিচালনা করবেন। এসময় তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশনা প্রদান করেন শুধু পাশের হার না বাড়িয়ে শিক্ষার মান বাড়াতে হবে। লালমোহন উপজেলা সকল প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত শিক্ষকদের উপস্থিতি পাঠদান রেজাল্ট পরিদর্শন করতে হবে। বক্তব্য শেষে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জালাল আহাম্মদকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন লালমোহন উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামছুল আরিফ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জালাল আহাম্মেদ। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ মালেক ফরাজী, সাধারন সম্পাদক শওকত আলী হেলাল। লালমোহন উপজেলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মামুনুর রশিদ সাধারন সম্পাদক মাহাবুব আলম সাংগঠনিক সম্পাদক রেহানা আক্তার। এসময় উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফখরুল আলম হাওলাদার, আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আলহাজ দিদারুল ইসলাম অরুন, সেলিম মাষ্টারসহ লালমোহন উপজেলার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন।

(আল-এম)