রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা বন্ধে শেখ হাসিনার আহ্বান

ডেস্কঃ ভোলানিউজ.কম,

০৫-০৯-২০১৭ইং,

রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে সমস্যা রাজনৈতিকভাবে সমাধান করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণভবনে ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী  রেতনো মারসুদির সঙ্গে বৈঠককালে শেখ হাসিনা এই আহ্বান জানান।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

রাখাইন রাজ্যের সংকট সমাধানে সহযোগিতা করার আগ্রহ প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সমস্যা সমাধানে সহযোগিতা করবো, কিন্তু তাদের উচিত সহিংসতা বন্ধ করা।’

সমাধানের উপায় প্রসঙ্গে দেশটির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা সামরিকভাবে সমাধান করা যাবে না। রাজনৈতিকভাবে সমস্যার সমাধান করতে হবে।’

দুই দেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর তাগিদ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মিয়ানমারে বিদ্রোহ দমনে আমাদের বিজিবিও সহযোগিতা করতে পারে।’

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সহযোগিতার মাধ্যমে ভারত তাদের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলে বিদ্রোহ সমস্যা সমাধান করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বর্ডার গার্ড-বিজিবি এবং নাসাকার (মিয়ানমারের সীমান্ত রক্ষী) মধ্যে সহযোগিতা বাড়ুক এটাই আমরা চাই।’

সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থান পুনব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রতিবেশী কোনো দেশে অস্থিতিশীলতা বা বিদ্রোহের জন্য বাংলাদেশের ভূমি ব্যবহার করতে দেবো না।’

মিয়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে উদ্বাস্তু হিসেবে থাকার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারকে  আমাদের সমস্যা বুঝতে হবে। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় বোঝা।’

নারী, শিশু, বৃদ্ধসহ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া দুর্দশাগ্রস্থ মানুষের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, তারা বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে।

কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়নের তাগিদ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সমস্যা সমাধানে এটি অনুসরণ করলে সমস্যা সমাধান সহজ হবে।

সংকট সমাধানে মিয়ানমার সরকারকে আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামে বিদ্রোহ সমস্যা সমাধানকে অনুসরণ করার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বাস্তু হিসেবে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের নাগরিকদের স্বদেশে ফিরিয়ে দেয়াকে বাংলাদেশ অগ্রাধিকার দিচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

(আলএম)