‘আনন্দের ঢল ভোলার ইলিশবাড়িতে’ ইলিশ পেয়েছে জিআই স্বীকৃতি,

সোহেল মাহমুদ,

ভোলানিউজ.কম,

১১আগস্ট-২০১৭ইং শুক্রবার,
ইলিশ এখন বাংলাদেশের ‘ভৌগলিক নির্দেশক’ (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেশন) পণ্য হিসেবে পৌঁছাবে বিশ্বের নানা দেশে। মৎস্য অধিদপ্তরের আবেদনে দেশের ঐতিহ্যের ধারক-বাহক জাতীয় মাছ ইলিশ জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধন পেয়েছে।
এদিকে এ খবরে ইলিশবাড়ি খ্যাত ভোলার চরফ্যাশনে জেলে পল্লীতে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।
বর্হিবিশ্বে ১১টি দেশের মধ্যে ৬৫ ভাগ ইলিশ উৎপাদন হয় বাংলাদেশে। জেলা মৎস্য দপ্তরের তথ্যা অনুযায়ী বছরে ৫ লাখ টন ইলিশ আহরণের মধ্যে ৬০ ভাগ ইলিশ বাংলাদেশে উৎপাদিত হয়। তার মধ্যে ইলিশ বাড়ি খ্যাত ভোলার বঙ্গোপসাগর, মেঘনা ও তেতুলিয়া নদীতে ২৭ ভাগ ইলিশ ধরা হয়।
সোমবার মিডিয়া জুড়ে বাংলাদেশের ইলিশ বিশ্বে জিআই পন্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার খবর শুনে ভোলার উপকূল জুড়ে জেলে ও মহাজনদের মাঝে উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়। মঙ্গল বুধ ও বৃহঃ বার দিনব্যাপী বৃহত্তর মাছ ঘাট সামরাজ, খাজুরগাছিয়া, বকশি, মাদ্রাজ, বেতুয়া, বাংলাবাজার ঘাটের জেলে ও মহাজনরা উৎসবে মেতে উঠেন।
বাংলাবাজার মাছ ঘাটের সাধারণ সম্পদক মোঃ ফিরেজ জানান, ইলিশ জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় এখন থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভোলার রূপালি ইলিশ বৈধ পথে বিক্রি করা যাবে, জেলে-মহাজনদের আর লোকসান গুনতে হবে না।
এই ব্যাপারে ইলিশর রক্ষয় কার্যকর সহ-ব্যবস্থাপনা কার্যত্রম সৃষ্টির লক্ষে কাজ কারা ইকোফিশ প্রকল্পের কর্মকর্তা খেকন চন্দ্র শীল জানান, সহ-ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম বাস্তবায়ন হলে জলেরা ও মৎস্য ব্যবসাহিরা অরও বেশি লাভবান হতে পারবে এই জিআই স্বীকৃতি এর মাধ্যমে।