টয়লেটের ময়লা পানি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ভোলায় গৃহবধুর বিষপানঃ অবশেষে মৃত্যু!

আল-আমিন এম তাওহীদ,

ভোলানিউজ.কম,

২৯জুলাই-২০১৭ইং শনবিার,

পাশ্ববর্তী বসতির সাথে বাতরুম, টয়লেটের ময়লা পানি বন্ধ নিয়ে ঝগড়া বিবাদের জেরধরে ভোলা সদর উপজেলার উত্তর দিঘলদী ইউনিয়নের চরকুমারি এলাকায় শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে বিষপান করেন এক গৃহবধু রাশেদা বেগম (৫০)। পরে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে আনলে শনিবার দুপুর ২টার দিকে মারা যায় গৃহবধু রাশেদা।
সরেজমিন সূত্রে জানা যায় , বাড়ির পাশ্ববর্তী বাসিন্দা নাছির খন্নির বসতবাড়ির টয়লেট ও বাতরুমের ময়লা পানি পুকুরে আসা ঘটনা নিয়ে ঝগড়া বিবাদ হয়। এঘটনায় নাছির খন্নির অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এঘটনার জেরধরেই বিষপান করেছে গৃহবধু রাশেদা বলে জানা যায়। গৃহবধু রাশেদা ওই এলাকার বাসিন্দা আব্দুল রবের স্ত্রী বলে জানা যায়।
বিষপানে আত্মহত্যাকারী রাশেদার পরিবার বলেন, আমাদের বাড়ির সামনে একটি পুকুর। এ পুকুরের পানি দিয়ে অজু,গোসলসহ সকল কিছু করা হয়। পুকুরের উত্তর পাশ্বে নাছির খন্নির বাগান। বাগানের মধ্যে রয়েছে তার বাতরুম, টয়লেট, প্রসাবখানা। টয়লেট এর পিছন দিকে একটি বড় ছিদ্র করে দিয়েছে নাছির খন্নির। ওই ছিদ্র দিয়ে ময়লা পানি বের হয়ে পুকুরে আসে। এগুলো নাছির খন্নিকে বন্ধ করতে বলায় সে এবং তার মেয়ে অকথ্য ভাষায় রাশেদাকে গালিগালাজ করে। এঘটনার জেরধরে বিষপান করছে রাশেদা।
এবিষয়ে নাছির খন্নির পরিবারের সাথে জানতে চাইলে তারা বলেন, গৃহবধু রাশেদার পুত্রবধুর সাথে ঝগড়া হয়েছে। এঝগড়ার জেরধরে সে বিষপান করেছে। আমাদের সাথে রাশেদার স্বামীর সাথে কথার কাটাকাটি হয়েছে। এর মূল কারন আমরা কিছু জানি না।
এবিষয়ে মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে, মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান মৃত্যু রাশেদার পরিবার।