মঠবা‌ড়িয়ায় সাংবা‌দিক সো‌হেল অামীন’র কন্যা উ‌র্মি হত্যা

ডেস্কঃ ভোলানিউজ.কম,

২৪জুলাই-২০১৭ইং সোমবার,

পি‌রোজপু‌রের মঠবাড়িয়ায় অনলাইন নিউজ মঠবা‌ড়িয়ার কন্ঠ প‌ত্রিকার নির্বা‌হি সম্পাদক ও মঠবা‌ড়িয়া রি‌পোর্টাস ক্লা‌বের সদস্য সাংবাদিক জুল‌ফিকার অামীন সো‌হেল এর ছোট কন্যা উর্মি আক্তার (১০) নিখোঁজ থাকার ৩দিন পর আজ রোববার সকালে বাড়ির অদূরে বাগানের নালা থেকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় লাশ উদ্ধার করেছে মঠবা‌ড়িয়া থানা পুলিশ।

গত ২১ জুলাই শুক্রবার বিকেলে থে‌কেই সে
নিখোঁজ হয়। নিহত উর্মি উপজেলার
৬নং মধ্য বড়মাছুয়া (জামতলা) প্রাথ‌মিক বিদ্যাল‌য়ের চতুর্থ শ্রে‌নির ছাত্রী।
গ্রামের মৃত মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিনের পুত্র
জুল‌ফিকার অামীন সোহেলের বড়
মেয়ে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী শর্মি (১৩) ও
উর্মি (১০) দাদী মেহেরুন আমিনের সাথে
উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামে বাড়িতে থাকতেন।

এবং পিতা জুল‌ফিকার অামীন সোহেল সাংবা‌দিকতা পেশার কার‌নে মঠবাড়িয়া পৌর শহরে বসবাস ক‌রেন। গত শুক্রবার
বিকা‌লে নিহত উর্মি প্রতিবেশী এক বান্ধবীর বাড়িতে যা‌চ্ছে ব‌লে‌ ঘর থে‌কে বের হ‌য়ে
নিখোঁজ হয়ে যায়। এ ঘটনায় পিতা সোহেল অামীন অাজ রোববার সকালে মঠবাড়িয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।এলাকার সবাই যখন উ‌র্মি‌কে খুজ‌তে‌ছিল তখন সকাল অাজ সা‌ড়ে এগারটার দি‌কে প্রতিবেশী জাহাঙ্গীর আকনের স্ত্রী লাশ‌টি‌ দেখ‌তে পে‌য়ে সবাই‌কে খবর দেন এবং প‌রে পু‌লিশ গি‌য়ে লাশ‌টি উদ্ধার ক‌রেন।
মঠবাড়িয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী শাহ্ নেওয়াজ জানান,  প্রাথমিক ধারনা করা হচ্ছে হত্যার আগে
তাকে বে‌ধে নির্যাতন করা হয়েছে। এ
ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
পিরোজপুর জেলা পুলিশ সুপার মোঃওয়ালিদ
হোসেন আজ রোববার বিকেলে ঘটনাস্থল
পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, লাশের ময়না তদন্তের পর জানা যাবে মৃত্যুর অা‌গে নির্যাতন করা হ‌য়ে‌ছে কিনা।