চাচার ঘরে মাটি কুড়ে মিলল অপহৃত শিশুর লাশ

ডেস্কঃ ভোলানিউজ.কম,

৩জুলাই-২০১৭ইং সোমবার,

মৌলভীবাজারে অপহরণের পাঁচ দিন পর চাচার ঘরের মাটির নিচ থেকে এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শিশুটির নাম কামরান আহমদ তামিম। বয়স ছয় বছর। সে স্থানীয় উদয়ন কেজি অ্যান্ড হাইস্কুলের প্লে গ্রুপের ছাত্র ছিল।

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই নারীসহ ১৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

রবিবার দিবাগত রাতে শিশু কামরানের বাবার চাচাতো ভাই আল-আমিনের ঘরের বিছানার নিচের মাটি খুড়ে লাশ উদ্ধার করা হয়।

মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সোহেল আহমদ বলেন, মূল হত্যাকারীরা হচ্ছেন, আল-আমিন (২৬), তার বন্ধু রবিউল মিয়া (২৫) ও জনি মিয়া (২২)। বাকিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

কামরানের দাদা এবাদত মিয়া জানান, ওমান প্রবাসী কয়েছ মিয়ার শিশুপুত্র ২৯ জুন সকাল ৯টার দিকে বাড়ির ভেতর সাইকেল চালানো অবস্থায় নিখোঁজ হয়। বিকালে তার চাচা রাসেলের ফোনে কল করে এক ব্যক্তি পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন এবং ৭২ ঘণ্টার সময় দেন। বিষয়টি মৌলভীবাজার মডেল থানার পুলিশকে জানানোর পর পুলিশ অনুসন্ধ্যানে নামে। পরে শিশুর এক আত্মীয় লিটন মিয়া বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ মোবাইলের সূত্র ধরে তৎপর হয় এবং রবিবার (২ জুলাই) রাত সাড়ে ১২টায় অপহৃত শিশু কামরানের বাবার চাচাতো ভাই আল-আমিনকে আটক করে এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ঘরের বিছানার নিচের মাটি খুড়ে কামরানের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

এদিকে রাতে শিশু কামরানের মা শিল্পী বেগম ছেলে হত্যার খবর শুনে মুর্ছা যান। পরে তাকে মৌলভীবাজার শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে জ্ঞান ফিরলেই চিৎকার করছেন আবার মুর্ছা যাচ্ছেন। পাশে থাকা খালা শাশুড়ি রোশনা বেগম ও মামাশ্বশুর আব্দুল কালাম তাকে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করছেন।

মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সোহেল আহমদ জানান, অপহৃত শিশুর পরিবারের দেয়া একটি মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরে পুলিশ অভিযান চালায়।