চরফ্যাশনে ‘স্লাইজগেট খাল লিজ’ হাহাকার কৃষক, ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

চরফ্যাশন প্রতিনিধি,

ভোলানিউজ.কম,

২৬-৪-২০১৭ইং বুধবার,

ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার হাজারীগঞ্জ এলাকার শতাধিক কৃষক ৫কপাট স্লাইজগেট খাল লিজ বাতিল করে পানি নিঃস্কাশনের ব্যবস্থা করতে নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ করছেন। গতকাল রবিবার বেলা ১২টায় প্রায় শতাধিক কৃষক এ অভিযোগ দাখিল করেছেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম ভোলার আলো.কম কে বলেন, ৫কপাট স্লাইজগেট খাল উপজেলা থেকে লিজ দেওয়ায় ইজাদারেরা বেশি লাভের আশায় স্লুইজ গেটের কপাট গুলো বন্ধ করে দেয়। ফলে বর্ষার মৌসুমে কৃষকের ফসল পানিতে ডুবে নষ্ট, পুকুরের মাছ বেসে তাদের ওই লিজ নেওয়া খালে আসে। এতে কৃষক পরিবারের ভোগান্তির আর শেষ থাকে না। এব্যপারে উপজেলা বহুবার মুখে আইন শৃংখলা মিটিং খাল লিজ বন্ধে দাবী জানালেও বাস্তবতার কিছূই হয় না। ফলে আজ কৃষক অতিষ্ঠ হয়ে আন্দোলন ডাক দিয়ে লিখিত ভাবে আবারও নির্বাহী বরাবর অভিযোগ করছেন। এর প্রতিকার না হলে কৃষক পেটের ক্ষুদা ইজারাদার সাথে বড় ধরনের সংঘাত ঘটানো সম্ভাবনা রয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ওই এলাকায় স্লুইজগেটটি ক্ষমতাধর ইজারা দারেরা বন্ধ করে খালে মাছ চাষ করছে। মৌসুমের অধিক বৃষ্টির ফলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে ১হাজার কৃষকের প্রায় ৫০হাজার একর জমির ধান নষ্ট হতে চলছে।
ইউপি সদস্য জাকির বলেন, ইতিপূর্বেও শতাধিক কৃষকের স্বাক্ষরিত বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করলে তাৎক্ষনিক ফলাফল ভাল পেলেও বাস্তবতার কিছুই তারা পায়নি। কৃষক নেছার হাওলাদার, সিরাজ মাঝি,মহিউদ্দিন একেই উক্তি দিয়ে বলেন, আমরা কৃষকের এবার বর্ষার পানিতে শেষ হয়ে গেছি। তার মধ্যে পানি খালে আটকিয়ে রাখায় বাকি ফসলও পানিতে ডুবে রয়েছে। কৃষকের দিকে কি কেই নজর দিবে না।

নির্বাহী কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন বলেন, বিষয়টি ক্ষতি দেখছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনোতোষ সিকদার বলেন, কৃষকের সুবির্ধাতে যা যা করা দরকার সবই করা হবে।ভোলক উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা বলেন, লিজ নেওয়া ব্যাক্তিদেরকে বললেও তারা তা কর্ণপাত করছে না। তারা বলছে গেটের কপাট নাকি নষ্ট হয়ে গেছে।